শিশু নির্মাতাদের কাছে পাই নতুন ধারণা: মুহিত


শিশু নির্মাতাদের কাছে পাই নতুন ধারণা: মুহিত

অনলাইন ডেস্ক | 2017/01/25 | 11:45

খুদে চলচ্চিত্র নির্মাতাদের চলচ্চিত্রে ‘নতুন ধারণা’ খুঁজে পাচ্ছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।

তিনি বলেছেন, “সৃষ্টির আনন্দে বিভোর কিশোররা চলচ্চিত্র নির্মাণের মাধ্যমে নিজেদের রুচিকে আরও উন্নত করছে, প্রতিভার বিকাশ ঘটাচ্ছে। এই তো আমাদের বড় পাওয়া।”

দশম ঢাকা আন্তর্জাতিক শিশু চলচ্চিত্র উৎসবের উদ্বোধনী আসরে প্রধান অতিথির ভাষণে অর্থমন্ত্রী মেতে ওঠেন ক্ষুদেদের প্রশংসায়।

রাজধানীর জাতীয় গণগ্রন্থাগারে মঙ্গলবার বিকালে উৎসবের উদ্বোধন করেন তিনি।

এবারের উৎসবে বাংলাদেশসহ ৫৪টি দেশের ৩৯০টি শিশুতোষ চলচ্চিত্র প্রদর্শিত হবে।

মুহিত বলেন, “সবার হয়ত সবগুলো ছবি দেখার সুযোগ হবে না। তবে আমি বলতে পারি, শিশুদের এসব ছবি দর্শকের জ্ঞানের ভাণ্ডার আরও সমৃদ্ধ করবে।”

অনুষ্ঠানের উদ্বোধনী পর্বের শেষে শওকত ওসমান মিলনায়তনে ছিল সংক্ষিপ্ত আলোচনা অনুষ্ঠান। এতে উপস্থিত ছিলেন সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর, উৎসব উপদেষ্টা পরিষদের চেয়ারম্যান চিত্রশিল্পী মুস্তাফা মনোয়ার, চিলড্রেনস ফিল্ম সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক মুনিরা মোরশেদ মুন্নী, উৎসব উপদেষ্টা মোরশেদুল ইসলাম ও উৎসব পরিচালক আবীর ফেরদৌস।

পাঠ্যসূচির বাইরে এসে শিশুদের চলচ্চিত্র নির্মাণের সুযোগ দেওয়ায় অভিভাবকদের ধন্যবাদ জানান সংস্কৃতিমন্ত্রী।

তিনি বলেন, “আজকে যারা এখানে এসেছে, তাদের সবাই পিতামাতার ভাগ্যবান সন্তান। কিন্তু এমন ভাগ্যবানের সংখ্যা কজন?

“দেশে পরীক্ষার্থী বেড়ে গেছে, শিক্ষার্থী নেই। এটাই আমাদের বড় সংকট। বাচ্চাদের জীবন থেকে ফুল পাখি আলো বাতাস হারিয়ে যাচ্ছে। তারা মেশিনের মতো করে বড় হচ্ছে।”

আলোচনা পর্বের শেষে হয় প্রদীপ প্রজ্জ্বলন। এরপর প্রদর্শিত হয় উৎসবের উদ্বোধনী চলচ্চিত্র ‘ফিডল স্টিকস’।

চিলড্রেন্স ফিল্ম সোসাইটি বাংলাদেশ আয়োজিত এই উৎসব রাজধানীর পাশাপাশি মঙ্গলবার থেকে রাজশাহী ও রংপুরেও শুরু হয়েছে। এবারের উৎসবে বিভিন্ন দেশ থেকে ১৮ জন বিদেশি অতিথি উৎসবে প্রতিনিধি হিসেবে অংশগ্রহণ করছেন।

উৎসবে বাংলাদেশসহ ৫৪টি দেশের ৩৯০টি শিশুতোষ চলচ্চিত্র প্রদর্শিত হবে।

চট্টগ্রামে এ উৎসব শুরু হবে ৩ মার্চ। সারা দেশের ১১টি ভেন্যুতে এ উৎসবে শিশুরা তাদের অভিভাবককে সঙ্গে নিয়ে বিনামূল্যে চলচ্চিত্র উপভোগ করতে পারবে।

শিশু চলচ্চিত্র উৎসবের রাজধানীর মূল ভেন্যু কেন্দ্রীয় পাবলিক লাইব্রেরির শওকত ওসমান স্মৃতি মিলনায়তন। উদ্বোধনী দিন ছাড়া প্রতিদিন সকাল ১১টা, দুপুর ২টা, বিকেল ৪টা ও সন্ধ্যা ৬টায় মোট চারটি করে প্রদর্শনী হবে।

কেন্দ্রীয় গণগ্রন্থাগার ছাড়া রাজধানীর অন্য ভেন্যুগুলো হলো জাতীয় জাদুঘর, বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি, অলিয়ঁস ফ্রঁসেজের ধানমণ্ডি ও উত্তরা শাখা, ব্রিটিশ কাউন্সিল ও ড্যাফোডিল ইউনিভার্সিটি মিলনায়তন।

এবারের উৎসবে প্রথমবারের মতো থাকছে ‘চাইল্ড ফিল্ম মেকার সেকশন’ (ইন্টারন্যাশনাল)।

READ : 439 times

এইদিনে