তাসপিয়া হত্যার নতুন মোড়, এবার কি করবে আদনান?

নিউজ ডেস্ক | 2018/05/13 | 17:37

স্কুলছাত্রী তাসপিয়া আমিন হত্যা মামলার প্রথম আসামি এবং তাসপিয়ার প্রেমিক আদনান মির্জাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আবারও সাত দিনের রিমান্ড আবেদন করেছে পুলিশ।

রোববার চট্টগ্রামের একটি আদালতে পুলিশের পক্ষ থেকে এই আবেদন করা হয়। আগামীকাল সোমবার রিমান্ড শুনানির দিন ধার্য করেছেন আদালত। সিএমপি পতেঙ্গা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আবুল কাশেম ভুঁইয়া এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে আদনানকে জিজ্ঞাসাবাদে ১০ দিনের রিমান্ড আবেদনের প্রেক্ষিতে গাজীপুর কিশোর সংশোধনাগারের তত্ত্বাবধায়কের উপস্থিতিতে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি দেন আদালত।

গত ৫ মে অতিরিক্ত চট্টগ্রাম মহানগর দায়রা জজ ও ভারপ্রাপ্ত শিশু আদালতের বিচারক জান্নাতুল ফেরদৌস আদেশটি দিয়েছিলেন। এরপর গত বৃহস্পতিবার (১০ মে) তিন ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ।

তবে কৌসুলী আদনানের কাছে তাসপিয়া হত্যায় কোনো তথ্য মিলেনি বলে জানান তদন্ত সংশ্লিষ্টরা। ফলে পুনরায় তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নতুনভাবে রিমান্ড প্রার্থনা করা হয়েছে (১৩ মে) রোববার।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও পতেঙ্গা থানার উপ-পরিদর্শক আনোয়ার হোসেন জানান, আদনানকে নানা কৌশল অবলম্বন করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছিল। তবে তাসপিয়া হত্যা মামলার মূল এই আসামি ও কথিত প্রেমিক আদনান মির্জার কাছ থেকে কোনো উত্তর মিলেনি। তবে জিজ্ঞাসাবাদকালে কিছুটা বিমর্ষ দেখা গেছে বলে জানান জেরাকারী দলের সদস্যরা।

গাজীপুর সংশোধনাগারে জিজ্ঞাসাবাদ করা তদন্ত টিমের সদস্যরা জানিয়েছেন, আমরা যেভাবে একটানা তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছি, তাতে এই বয়সী একটি ছেলে ভেঙে পড়তে বাধ্য। আদনানের ক্ষেত্রে এর ব্যতিক্রম দেখা গেছে। উপস্থিত মনোবিজ্ঞানীরা তাকে পরীক্ষা করেছেন। তাতেও তার মধ্যে কোনো অসঙ্গতি ধরা পড়েনি।

এদিকে, তাসপিয়ার পরিবারের অভিযোগ- খুনের আসামিকে জামাই আদরে জিজ্ঞাসাবাদ করলে তথ্য বেরুবে কোত্থেকে? একে তো সেখানে আসামি হিসেবে ট্রিট করা হয়নি।

তবে জিজ্ঞাসাবাদে আদনান স্বীকার করে, তাসপিয়ার ফেসবুক তার বাবা বন্ধ করে দেযার পর তারা দুজনে যোগাযোগ করত ইনস্টাগ্রামে।

১ মে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় নগরীর গোল পাহাড় মোড়ে চায়না গ্রিল নামের চাইনিজ রেস্টুরেন্টে প্রেমের এক মাস পূর্তি উৎসব করতে সেখানে তাসপিয়াকে নিয়ে যায় আদনান।

এরপর তাসপিয়াকে একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশায় তুলে দেয় সে। যাওয়ার সময় আদনানকে জানিয়ে যায়, তাসপিয়া ওআর নিজাম রোডের ৫ নং সড়কে তার এক বান্ধবীর বাসায় জন্মদিনের অনুষ্ঠানে যাবে। এরপর থেকে আদনান আর কিছু জানে না বলে প্রশ্নের উত্তরে জানায়।

সিএমপির তাসপিয়া মার্ডার মামলার তদন্ত টিমের ইনচার্জ এডিসি আরেফীন জুয়েল বলেন, তাসপিয়ার জন্য ভাড়া করা অটোরিকশাটি গোলপাহাড় মোড়ে এসেছে শিল্পকলা একাডেমির দিক থেকে। পুলিশ তাসপিয়াকে বহনকারী অটোরিকশা চিহ্নিত করলেও সেটির নম্বর শনাক্ত করা যায়নি। তবে ওই অটোরিকশার স্ক্রিনশট ঢাকার সিআইডি ল্যাবে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হচ্ছে।

তদন্ত টিমের এক কর্মকর্তা জানান, ময়নাতদন্ত শেষে পরীক্ষার জন্য ঢাকা সিআইডিতে পাঠানো হয়েছে ভিসেরা রিপোর্টের জন্য। তাসপিয়াকে বহনকারী সিএনজি অটোরিকশাটির সন্ধান এখনো মিলেনি। অটোরিকশার নম্বর শনাক্ত করতে প্রয়োজনীয় তথ্য চীনে পাঠানো হয়েছে বলেও তিনি জানান। এছাড়া মৃত্যু রহস্য জানার শেষ ভরসা ময়নাতদন্ত ভিসেরা ও সিআইডি রিপোর্ট।

এর আগে (২ মে) বুধবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকত এলাকা থেকে অজ্ঞাত হিসেবে তাসপিয়ার মরদেহ উদ্ধার করে নগরীর পতেঙ্গা থানা পুলিশ। স্থানীয় পথচারীরা মৃতদেহটি দেখতে পেয়ে থানায় খবর দেয়।

খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকত এলাকার ১৮ নম্বর ব্রিজের উত্তর পাশে পাথরের ওপর উপুড় হয়ে পড়ে থাকা লাশটি উদ্ধার করে।

এ ঘটনায় ৩ মে বৃহস্পতিবার দুপুরে তাসপিয়ার বাবা কন্যা হত্যার অভিযোগে সুনির্দিষ্ট ছয়জনকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা করেছেন। সেই মামলার ষষ্ঠ নম্বর আসামি যুবলীগ নেতা ফিরোজ। আর এর প্রধান আসামি আদনান মির্জা। আদনান মির্জা ফিরোজের পরিচালিত “রিচ কিডস” নামের গ্যাংস্টারের (এডমিন) প্রধান। আর বাকি চারজন তার সেই গ্যাংস্টারের ক্যাডার। আর সেই গ্যাংস্টারের চার সদস্য হলো- সানশাইন গ্রামার স্কুলের নবম শ্রেণির ছাত্র শওকত মিরাজ ও আসিফ মিজান, আশেকানে আউলিয়া ডিগ্রি কলেজের এইচএসসির ছাত্র ইমতিয়াজ সুলতান ইকরাম এবং স্বঘোষিত যুবলীগ নেতা ফিরোজের সহযোগী যুবলীগ কর্মী সোহায়েল প্রকাশ সোহেল।

READ : 4603 times

এইদিনে