খালি পেটে রসুন-মধু খান এই নিয়মে, আর ফল পান হাতেনাতে

ঢাকা | 2017/02/16 | 07:20

শুনে কেমন একটা লাগল, তাই না? রসুন আর মধু একসঙ্গে খেলে কেমন হবে সেই স্বাদ? কিন্তু সত্যি বলতে কী, এই দুটি উপাদান যদি রোজ সকালে খালি পেটে খেতে থাকেন, তাহলে হাতেনাতে ফল পাবেন। শরীর-স্বাস্থ্যে চলে আসবে দারুণ প্রাণবন্তভাব। কীভাবে?

তার আগে চট করে জেনে নিন এই উপাদানগুলির গুণাগুণ –

রসুন

রান্নায় স্বাদ বাড়ানোর পাশাপাশি বেশকিছু স্বাস্থ্যসম্মত গুণ আছে রসুনের। এর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট গুণ শরীরের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে তোলে। রসুনে উপস্থিত অ্যালিসিন (allicin) কম্পাউন্ড কোলেস্টেরলের মাত্রা কমিয়ে ফেলতে সাহায্য করে, রক্ত জমাট বাঁধতে দেয় না, মারণরোগ ক্যান্সার হওয়ার সম্ভাবনাও কমে। পাশাপাশি শরীরে ক্ষতিকারক জীবাণুদের বংশবৃদ্ধিও রোধ করে।
রসুনে ক্যালোরি খুবই কম। ওজন বাড়ায় না। নিউট্রিয়েন্টে ভরপুর। রয়েছে ম্যাঙ্গানিজ়, ভিটামিন B6, ভিটামিন C, সেলেনিয়াম ও ফাইবার। রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে তোলার পাশাপাশি নানাধরনের জীবাণু সংক্রমণ থেকেও শরীরকে রক্ষা করে। একটি পরীক্ষায় বেরিয়েছে, রোজ এক কোয়া রসুন খেলে ঠান্ডা লাগার সম্ভাবনা ৭০% কমে।

কাঁচা মধু

অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট উপাদানে ভরপুর মধুতে রয়েছে এনজ়াইম ও আয়রন, জ়িঙ্ক, পটাশিয়াম, ক্যালশিয়াম, ফরফরাস, ম্যাগনেশিয়াম, সেলেনিয়ামের মতো খনিজ পদার্থ। এছাড়াও রয়েছে ভিটামিন B6, থিয়ামিন, রিবোফ্ল্যাভিন ও নিয়াসিন। বাজারে বিক্রি হওয়া ব্র্যান্ডেড ও শিশি বন্দি প্রসেসড্ মধুর অনেক গুণ নষ্ট হয়ে যায়। তাই ব্যান্ডেড মধু ব্যবহার না করতে চেষ্টা করুন। সরাসরি মৌমাছির চাক থেকে সংগ্রহ করা কাঁচা মধুই সেরা। এর স্বাদও কড়া ও অনেকবেশি স্বাস্থ্য গুণে ভরপুর। তবে উপায় না থাকলে, বাজার থেকে কেনা মধুই ব্যবহার করুন।

কাঁচা মধুতে উপস্থিত গ্লাইসেমিক ইন্ডেক্স (glycemic index) হজমশক্তি বাড়ায়। এর প্রকৃতিক উপাদান, যেমন ভিটামিন ও মিনারেল কলেস্টেরল লেভেল কমায়। শরীরের অতিরিক্ত মেদ কমিয়ে ঝরঝরে করে তোলে। এর অ্যান্টি-ব্যাক্টেরিয়াল ও অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট উপাদান শরীরের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে তোলে।

এবার রসুন ও মধুকে কীভাবে একসঙ্গে খাবেন, তার জন্য রইল সহজ রেসিপি –
উপাদান –
1. ৩-৪টে গোটা রসুন
2. ১ কাপ কাঁচা মধু
3. ঢাকাওয়ালা ছোটো কাচের শিশি

পদ্ধতি –
1. রসুনের কোয়াগুলিকে আলাদা আলাদা করে নিন।
2. কোয়াগুলির খোসা ছাড়িয়ে নিন।
3. এবার সেই কোয়াগুলিকে ভালো করে জল দিয়ে ধুয়ে কাঁচের শিশিতে ভরে নিন।
4. কাঁচা মধু ঢেলে দিন ভিতরে। চামচ দিয়ে বের করে নিন বুদবুদ, যাতে হাওয়া না থাকে।
5. খেয়াল করুন রসুনের কোয়াগুলি যাতে মধুর মধ্যে পুরোপুরি ডুবে থাকে।
6. ঢাকনা দিয়ে শিশির মুখ বন্ধ করে দিন।
7. এভাবে রেখে দিন কিছুদিন। ফ্রিজেও রাখতে পারেন আবার ঘরের স্বাভাবিক তামমাত্রায় রাখতে পারেন। দেখবেন, যেন গরম বা সূর্যের রোদ শিশির গায়ে না লাগে। না হলে রসুনের অ্যালিসিন ও অন্যান্য গুণ নষ্ট হয়ে যেতে পারে।

রোজ সকালে ঘুম থেকে উঠে একচামচ রসুন-মধু খালি পেটে খেতে থাকুন। কিছুদিনের মধ্যেই দেখতে পাবেন চোখে পড়ার মতো পরিবর্তন। শরীরে রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ার পাশাপাশি আশ্চর্যভাবে ঝরতে থাকবে বাড়তি মেদও। কোলেস্টেরল লেভেল নিয়ন্ত্রণে আসবে। সর্দি-কাশির মতো সমস্যা থেকে মুক্তি পাবেন।

READ : 6419 times

এইদিনে