স্যোশাল মিডিয়ায় সমালোচনায় বিদ্ধ রুবেল, প্রশ্ন উঠেছে দায়িত্ববোধ নিয়ে

নিউজ ডেস্ক | 2018/05/08 | 17:50

আইপিএলের ৩৯তম ম্যাচে বিরাট কোহলির বেঙ্গালুরুকে ৫ রানে হারিয়েছে শীর্ষে থাকা সাকিবের হায়দ্রাবাদ। ব্যাট আর বল হাতে দুর্দান্ত ছিলেন সাকিব। তারপরও ম্যাচ সেরা হয়েছেন হায়দ্রাবাদের অধিনায়ক ৩৯ বলে ৫টি চার আর দুটি ছক্কায় ইনিংস সর্বোচ্চ ৫৬ রান করা কেন উইলিয়ামসন।

এর সঙ্গে বাংলাদেশি পেসার রুবেল হোসেনের সম্পর্ক কি? শিরোনাম দেখে অনেকেই এমনটা ভাবছেন। পুরো খবরটি জানলে পরিষ্কার হয়ে যাবে।

ব্যাট হাতে ৩২ বলে ৫টি বাউন্ডারিতে ইনিংসের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৩৫ রান করেন সাকিব। আর বল হাতে বেঙ্গালুরুর ওপেনার পার্থিব প্যাটেল এবং অধিনায়ক বিরাট কোহলির মূল্যবান দুটি উইকেট তুলে নেন। সন্দীপ শর্মা, ভুবনেশ্বর কুমার, সিদ্ধার্ত কাউল আর রশিদ খানরা ৪ ওভার বল করে যেখানে একটি করে উইকেট পেয়েছেন, সেখানে সাকিব ৪ ওভারে ৩৬ রান দিয়ে নিয়েছেন দুটি উইকেট।

ব্যাট কিংবা বল হাতে ভালো পারফরম্যান্স দেখালেও সাকিবকে ম্যান অব দ্য ম্যাচের পুরস্কার দেওয়া হয়নি। আগের একটি ম্যাচেও ব্যাট-বল হাতে অলরাউন্ড পারফর্ম করলেও সাকিবকে ম্যাচ সেরার পুরস্কার থেকে বঞ্চিত করা হয়। পেশাদারী মনোভাবের কারণে ক্রিকেটারদের ক্ষোভ লুকিয়ে রাখতে হবে, সেটাই স্বাভাবিক।

কিন্তু, এর সঙ্গে রুবেল জড়িয়ে গেছেন। জাতীয় দলের তারকা খেলোয়াড় হিসেবে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে রুবেলের ফেসবুক পেজটি ভেরিফাইড করা। সেখানে রুবেলের করা যেকোনো পোস্টে হুমড়ি খেয়ে পড়েন ক্রিকেটপ্রেমীরা। সাকিবদের ম্যাচ শেষে রুবেলের এই ভেরিফাইড পেজে একটি পোস্ট আসে। সেখানে লেখা ছিল, ‘ভারতীয় দালালরা এসব কি অসভ্যতা শুরু করেছে… গুরুত্বপূর্ণ সময় ব্যাটিংয়ে ৩৬ রান (আসলে ৩৫ রান) এবং বল হাতে বিরাট কোহলির উইকেটসহ ৩৬ রানে ২ উইকেট, অথচ ম্যান অব দ্য ম্যাচ সাকিব ভাইকে দেওয়া হয়নি!!! এর আগেও তার অবদানে হায়দ্রাবাদ দুইটা ম্যাচ জিতেছিল। এটা কোন ধরনের অসভ্যতা?? আমরা কি বাংলাদেশি বলে আমাদের সাথে এমন করা হয়? 

এরপর থেকে রুবেল হোসেনের এই পোস্ট নিয়ে তুমুল সমালোচনা শুরু হয়। পরে রুবেল সেই পোস্টটি ডিলিট করে দেন। এরপর নতুন করে একটি পোস্ট লেখেন তিনি। সেখানে লেখা ছিল, ‘বর্তমানে বাচ্চাদের হাতে মোবাইল দেয়া খুবই রিস্কি ব্যাপার। ফোন আমার হাতে ছিল না। আমার ছোট ভাগ্নের হাতে ছিল। আর ও আগের পোস্টটা দিয়েছিল।’

কিন্তু, রুবেলের সমালোচনা থেমে নেই। বেলাল হোসেন বেলাল নামের এক রুবেল ভক্ত কমেন্টে লিখেছেন, ‘শাক দিয়ে মাছ ঢাকার দৃঢ় প্রচেষ্টা। আপনাকে খেয়াল রাখতে হবে যে আপনি একজন প্রফেশনাল ক্রিকেটার। আপনার যেকোন মন্তব্য সবার কাছে বিশ্লেষন যোগ্য!’ ইকবাল হোসেন নামে আরেকজন লিখেছেন, ‘ভাই, আপনি একজন ইন্টারন্যাশনাল লেভেল এর প্লেয়ার। আপনাকে মোবাইল বা ফেসবুক ব্যবহারে অব্যশই সচেতন হতে হবে।’ আরেকজন কমেন্ট করে লিখেছেন, ‘সাকিব আল হাসানের ম্যান অবদ্যম্যাচ নিয়ে রুবেল ভাইয়ের প্রতিক্রিয়া ভালোই ছিলো। যদিও জাতীয় দলের প্লেয়ার হিসেবে এসব বলা ঠিক না।’

আলোচনা-সমালোচনার ঝড় ওঠা রুবেলের পোস্টটির স্ক্রীনশট মুহূর্তের মধ্যে ভাইরাল হতে শুরু করে। প্রশ্ন ওঠে রুবেলের দায়িত্ব-জ্ঞান নিয়েও। যদিও রুবেল জানিয়েছেন, পোস্টটি তার ভাগ্নে করেছে। তারপরও জাতীয় দলের ক্রিকেটার হিসেবে যে ভেরিফাইড পেজ পেয়েছেন, সেখানে অসতর্কতার পরিচয় দেওয়া কতটা যৌক্তিক? দেশের প্রতিনিধিত্ব করা জাতীয় দলের একজন ক্রিকেটার কি করে এমন অনভিপ্রেত কাজ করতে পারেন?
 

READ : 661 times

এইদিনে